রবিবার ২৫ ফেব্রুয়ারী ২০২৪
Space Advertisement
Space For advertisement
  • প্রচ্ছদ » লিড নিউজ ১ » কুমিল্লার বিবির বাজার স্থলবন্দর আমদানি সংকটে ২৮ বছরেও বাড়েনি বাণিজ্য পরিধি, মুখ ফিরাচ্ছেন ব্যবসায়ীরা


কুমিল্লার বিবির বাজার স্থলবন্দর আমদানি সংকটে ২৮ বছরেও বাড়েনি বাণিজ্য পরিধি, মুখ ফিরাচ্ছেন ব্যবসায়ীরা


আমাদের কুমিল্লা .কম :
18.07.2023

স্টাফ রিপোর্টার ।। কুমিল্লার বিবিরবাজার স্থলবন্দর। দীর্ঘ ২৮ বছরেও পণ্য আমদানি-রপ্তানিতে ব্যস্ত হয়ে উঠতে পারেনি বন্দরটি। তবে ধীরে ধীরে সিমেন্ট ও পাথরসহ বিভিন্ন নির্মাণ সামগ্রির রপ্তানির পরিধি বাড়লেও আমদানির পরিমান একেবারে সীমিত। দেশের চাহিদা অনুযায়ী প্রয়োজনীয় পণ্যে আমদানি না বাড়ায় ঝিমিয়ে আছে বন্দরটি। সেই সঙ্গে রাজস্ব আদায়েও পিছিয়ে পড়ছে। এছাড়া আনুষ্ঠানিকভাবে উদ্বোধন হলেও কুমিল্লার গোমতী নদী দিয়ে ভারতের বন্ধ রয়েছে নৌবাণিজ্যও।

১৯৯৫ সালে পণ্য আমদানি ও রপ্তানি শুরু হয় বিবির বাজার স্থলবন্দর দিয়ে । ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের মধ্যবর্তী হওয়ায় ভারতের সঙ্গে বাণিজ্য বাড়াতে বন্দরটির সম্ভাবনা থাকলেও দীর্ঘ দিনেও আশানুরূপ রাজস্ব আদায় হয়নি এই বন্দর থেকে।

এ স্থল বন্দর নিয়ে পণ্য আমদানি ও রপ্তানি করেন এমন বেশকিছু ব্যবসায়ী জানান, চাহিদা অনুযায়ী ভারত থেকে পণ্য আমদানির অনুমোদন পাওয়া গেলে ভারত ও বাংলাদেশের মধ্যে বাড়বে বাণিজ্য পরিধি।

স্থলবন্দর সূত্রে জানা যায়, সিমেন্ট, কয়লা ও পাথরসহ ২০২২-২৩ অর্থবছরে প্রায় ৯৮ হাজার মেট্রিক টন পণ্য রপ্তানি করেছে বাংলাদেশ। এর বিপরীতে ৪১ হাজার মেট্রিক টন গম ও বিভিন্ন খাদ্যসামগ্রী আমদানি হয় ভারত থেকে। এতে সরকারের কোষাগারে প্রায় সাড়ে ৭৬ কোটি টাকার রাজস্ব যুক্ত হয়। অন্যদিকে আমদানিতে রাজস্ব মাত্র সাড়ে তিন কোটি টাকা।

এদিকে এ স্থলবন্দর দিয়ে চলতি অর্থবছরে বাংলাদেশ থেকে সিমেন্ট ও এলপিজি গ্যাসের রপ্তানি বেড়েছে। বিপরীতে আমদানির পরিমাণ মাইনাসে নেমেছে। গত চার মাসে আগরবাতি, ভূট্টা, গুড়া হলুদ ও জিরাসহ মাত্র দেড় কোটি টাকার পণ্য আমদানি হয়েছে। এর তুলনায় রপ্তানি হয়েছে প্রায় ৬৩ কোটি টাকার পণ্য। এতে করে সরকারের কোষাগারে শুধু মাত্র এককোটি ৪০ লাখ টাকার আমদানি শুল্ক যুক্ত হয়েছে।

মোশারফ হোসেন ও আবুল খায়েরসহ একাধিক গাড়ি চালক ও শ্রমিকরা জানান, বিবিরবাজার স্থলবন্দরে পণ্যের গাড়ি এসে দিনের পর দিন আটকে থাকতে হয় ছাড়পত্রের সমস্যার কারণে। এখানে থাকা, খাওয়া এবং পানি ও বাথরুমের সমস্যায় পড়তে হয়। এছাড়া অবকাঠামোগত উন্নয়ন না হওয়ায় পড়ছেন নানা সংকটে। ভারতীয় বন্দরে গিয়ে নানান সময় হেনস্তা হওয়ারও অভিযোগ তাদের।

বিবির বাজার ল্যান্ড পোর্ট সিএন্ডএফ এজেন্ট এসোসিয়েশন সাধারণ সম্পাদক নির্মল পাল বলেন, ভারত থেকে ৩৯টি পণ্য আমদানির অনুমোদন থাকলেও বাংলাদেশে সেগুলোর চাহিদা কম। পাশাপাশি ডলারের দাম বেড়ে যাওয়াকেও দায়ী করেছেন ব্যবসায়ীরা।

এদিকে স্থল বানিজ্যের বাইরে, ২০২০ সালের ৫ সেপ্টেম্বর কুমিল্লার গোমতী নদী দিয়ে দাউদকান্দি থেকে ভারতের সঙ্গে নৌবাণিজ্য শুরু হয়েছিলো। তবে, গোমতী নদীর নাব্যতা সংকটে সেটিও বন্ধ হয়ে যায়।