মঙ্গল্বার ২৩ জুলাই ২০২৪
Space Advertisement
Space For advertisement
  • প্রচ্ছদ » লিড নিউজ ১ » কুমিল্লা কালেক্টরি পুকুর ময়লার ভাগাড়ে ভরা, সংস্কারের দাবি #পুকুরটির উন্নয়ন নিয়ে আমরা কাজ করতে চাই- অতিঃ জেলা প্রশাসক #মসজিদে নামাজ পড়তে কষ্ট হয়-মুসল্লিরা


কুমিল্লা কালেক্টরি পুকুর ময়লার ভাগাড়ে ভরা, সংস্কারের দাবি #পুকুরটির উন্নয়ন নিয়ে আমরা কাজ করতে চাই- অতিঃ জেলা প্রশাসক #মসজিদে নামাজ পড়তে কষ্ট হয়-মুসল্লিরা


আমাদের কুমিল্লা .কম :
15.06.2024

সোহাইবুল ইসলাম সোহাগ ।। কুমিল্লা নগরীর কালেক্টরি পুকুর। ময়লা, দূর্গন্ধ আর দূষিত পানিতে বর্তমানে এই পুকুর পাড়ে বসবাসরতরা পড়েছেন বিপাকে। দ্রুত সংস্কারের প্রয়োজন বলে দাবি করছেন কুমিল্লা জেলা প্রশাসক কার্যালয়ের সেবাগ্রহীতা ও এলাকাবাসি।
পুকুরের আশপাশের মানুষ ও মসজিদের মুসল্লিরা চরম বিপাকে পড়েছেন। পুকুরের দূষিত পানির গন্ধ এলাকাটিকে বসবাসের অনুপোযোগী করে তুলছে। পাশে কাস্টমস অফিসের কর্মকর্তারা জানালা খোললেই নাকের ডগায় ময়লার গন্ধ পায়, এতে জানালাও খোলতে পারছেনা। জেলা প্রশাসক কার্যালয়ের সেবাগ্রহীতারা একটু দাঁড়িয়ে থাকতে পারেনা ময়লা আবর্জনা পানির গন্ধে। সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ জেলা প্রশাসককে অভিযোগ দিয়েও প্রতিকার পাচ্ছেন না এলাকাবাসী।
এলাকাবাসীরা জানান, দীর্ঘ বছর যাবৎ এই পুকুরটি পরিচালনা করছেন কুমিল্লা জেলা প্রশাসক। তারা পরিচালনা করলেও আশপাশে গড়ে উঠা পার্ক ও দোকান থেকে ময়লা-আবর্জনা ফেলায় পুকুরটি এখন অযোগ্য হয়ে উঠছে। এতে পাশের মসজিদের মুসল্লী ও পুকুরপাড়ে বসবাসরত মানুষ চরম দূর্ভোগে পড়েছেন। এলাকাবাসী ওই পুকুরে আগে গোসল করলেও এখন আর গোসল করেনা। এছাড়াও পুকুর পাড়টিতে বিভিন্ন দোকানের ময়লা-আবর্জনা ফেলছে। পুকুর ও পরিবেশ রক্ষায় এলাকাবাসী সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের দৃষ্টি আকর্ষণ করেছেন।
নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক পুকুর পাড়ের একাধিক বাসিন্দা বলেন, আশপাশে গড়ে উঠা ও পার্কের ভেতর বাহিরের ভাসমান দোকানের ময়লা-আবর্জনা ফেলে পুকুরের পানি দূষিত করছে। যদিও পুকুরটি জেলা প্রশাসকের আওয়তাধীন তবুও তারা সংস্কারে কোন ব্যবস্থা নিচ্ছেন না।
এডভোকেট আতিকুল ইসলাম বলেন,এ পুকুরটি ব্যবহারের উপযোগী করা প্রয়োজন। আমরা এক সময়ে ডিসি অফিসে আসলে পুকুর পাড়ে গিয়ে হাত-পা ধুইতাম। এখন আর তা পারিনা। যে রকম ময়লা আর ফেনসিডিলের বোতল পড়ে আছে, এতে হাত ধোয়ার পরিবেশ নেই। এটি সংস্কারের উদ্যোগ নিলে আমরা সেবাগ্রহীতারাসহ পুকুর পাড়ে বসবাসরত বাসিন্দারা অনেক উপকৃত হবে।
এ বিষয়ে কুমিল্লার অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ কাবিরুল ইসলাম খান বলেন, পুকুরটির সংস্কার তো আমরাও চাই। মাসখানেক আগে পুকুরটিতে কচুরিপানা ছিলো। তা আমরা পরিষ্কার করেছি। জায়গাটি নিয়ে একটি মামলা চলমান থাকলেও পুকুরটি আমাদের দখলে। পুকুরটির উন্নয়ন নিয়ে আমরা কাজ করতে চাই।