সোমবার ৬ ফেব্রুয়ারী ২০২৩
Space Advertisement
Space For advertisement


রঙ ছড়াচ্ছে হ্যান্ড পেইন্ট পাঞ্জাবি-শাড়ি


আমাদের কুমিল্লা .কম :
02.10.2022

আবু সুফিয়ান রাসেল ।। এক রঙের কাপড়। তার মাঝে স্বপ্নের মতো তুলির ছোঁয়া। এই ছোঁয়ায় ফুটে ওঠে দেশ, প্রকৃতি ও ঐতিহ্য। ফুল, পাতা, পাখি, ক্যালিওগ্রাফি, লোকচিত্র, পটচিত্রসহ কি না মেলে এসব কাপড়ে। আর এসব কাপড় নতুন মাত্রা পেয়ে হয়ে উঠে মানুষের পরিদেয় হিসেবে। আর তুলির রঙ অনলাইন বাজারেও রঙ ছড়াচ্ছে। যেকারণে হাতে আঁকা বা হ্যান্ড পেইন্ট পাঞ্জাবি, ফতোয়া ও শাড়ির জনপ্রিয়তা দিনদিন দৃশ্যমানভাবে বাড়ছে।
তানিয়া আক্তার। ভিক্টোরিয়া সরকারি কলেজের স্নাতক শ্রেণির শিক্ষার্থী। করোনায় টিউশনি হারিয়ে হাতে আঁকা পোশাক তৈরি করে ফেসবুক গ্রুপে বিক্রি শুরু করেন। বাজার থেকে পাঞ্জাবি, শাড়ি কিনে ফুল, পাতা, পাখি, ক্যালিওগ্রাফি করে তা আবার বিক্রি করেন।
উদ্যোক্তা তানিয়া আক্তার জানান, আমরা ফ্রেব্রিক্স হিসেবে ব্যবহার করি সিল্ক, মটকা, খেশ, তাঁত, টিসু, সুতি খাদি, স্লাব কটন, আড়ং কটন কাপড়। আর শাড়ি, পাঞ্জাবি, ফতুয়া, কুর্তি, কামিজ, থ্রিপিস, টেবিল ম্যাট, চেয়ার কভার, কুশন কভার, পর্দাসহ অর্ডার মতো পেইন্ট করে বিক্রি করি। সাধারণ বিক্রি হলো পাঞ্জাবি আর শাড়ি। কাপল সেট হিসাবেও পাঞ্জাবি-শাড়ি খুব জনপ্রিয়। ঈদ, বৈশাখ, বাসন্তীতে বিক্রি ভালো থাকে।
খন্দকার হক টাওয়ারের দেহনন্দন ফ্রেব্রিক্সের মালিক আবু রায়হান বলেন, হ্যান্ড পেইন্ট তরুণদের কাছে জনপ্রিয়তা পাচ্ছে ঠিক। তবে কাস্টমাইজেশন করাটা কঠিন। তাদের চাহিদা আর কাপড়ের মান নিয়ে বারবার প্রশ্ন উঠে তাই আস্থার জায়গা সেভাবে তৈরি হয়নি। মার্কেটে হ্যান্ড পেইন্ট কাজের খুব চাহিদা আছে।
ভিক্টোরিয়া ই-কমার্স ফোরামের প্রতিষ্ঠাতা ও এডমিন কাজী আপন তিবরানী বলেন, আমাদের গ্রুপ থেকে অনেক উদ্যোক্তা তৈরি হয়েছে। তানিয়াও তাদের একজন। আমি ব্যক্তিগত ভাবে হ্যান্ড পেইন্ট জিনিসটা পছন্দ করি।